২৫৬১ বুদ্ধাব্দ ১৩ শ্রাবণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ শুক্রবার, ২৮ জুলাই ২০১৭ইংরেজী
রবিবার, 13 সেপ্টেম্বর 2015 01:01

জয়মংগল অট্ঠগাথার বাংলা অনুবাদ ৬ষ্ঠ পর্ব

লিখেছেনঃ ইলা মুৎসুদ্দী

জয়মংগল অট্ঠগাথার বাংলা অনুবাদ ৬ষ্ঠ পর্ব

সাচচং বিহায মতি সচচকবাদ কেতুং,
বাদাভিরোপিত মানং অতি অন্ধভূতং।
পঞ্ঞাপাদীপ জনিতো জিতবা মুনিন্দো,
তন্তেজসা ভবতুতে জয় মঙ্গলানি।

সত্যক নামক এক জন নির্গ্রন্থ (জৈন) সন্ন্যাসী ছিলেন প্রচন্ড তার্কিক। তাঁর মাতা-পিতা এবং চার বোন ও ছিলেন তর্ক শাস্ত্রে পারংগম। তার চার বোনের নাম ছিল—সত্যা, লোলা, অবধারিকা ও প্রতিচ্ছদা। মাতাপিতা উভয়ে কন্যাদের তর্কবিদ্যা শিক্ষাদানকালে বলেছিলেন যদি কোন গৃহীর কাছে পরাজিত হও তবে তার ভার্যা হবে আর যদি কোন পরিব্রাজকের কাছে পরাজিত হও তবে তার কাছে প্রব্রজ্যা গ্রহণ করবে। ঐ চার বোন অগ্রশাবক সারিপুত্রের সাথে তর্কযুদ্ধ করে পরাজয় স্বীকার করে বুদ্ধের আদেশে উৎপলাবর্ণা থেরীর কাছে ভিক্ষুণীর দীক্ষা গ্রহণন করেন। পরবর্তীতে তারা প্রত্যেকেই অরহত্ত্ব মার্গফলে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলেন। সত্যক ও সত্য পরিত্যাগ করে মিথ্যা দৃষ্টির বর্শীভূত হয়ে বাদ-বিবাদ তর্ক-বিতর্ক করে নিজের মত প্রতিষ্ঠা করতে চেষ্টা করত। তার মন অজ্ঞানান্ধারে আচ্ছন্ন হয়েছিল সে কিছু দিন বুদ্ধের শিষ্য হয়ে ভিক্ষু ছিল। কিন্তু ধম্মবিনয়ে শিক্ষা লাভ করে মার্গলাভ করার পূর্বে সে ভিক্ষুত্ব ত্যাগ করে পূনঃ জৈন ধর্মে ফিরে গেল। সে নানা ভাবে বুদ্ধের ও তৎপ্রচারিত ধর্মের নিন্দা করতে থাকে এবং বুদ্ধের ধর্মের অপব্যাখ্যা করে ধর্মকে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করে, বুদ্ধে ধর্মে কোন সার সত্য নেই বলে প্রচার করে। জগৎ পূজ্য মহামানব গৌতম বুদ্ধ তাকে উপদেশ দিয়ে তার মনে প্রজ্ঞারুপ প্রদীপ জ্বেলে দিলেন। সে মিথ্যা দৃষ্টি লাভ করে। মৈত্রী বলে জয় করে বুদ্ধের সার সত্যকে বুঝাতে সক্ষম হয়েছেন।
বুদ্ধ যে তেজশক্তির প্রভাবে মোহান্ধ তুল্য সত্যককে তার হৃদয়ে প্রজ্ঞারূপী প্রদীপ জ্বালিয়ে মনের অন্ধকার বিদূরিত করেছিলেন, সেই সত্যের প্রভাবে আপনাদের সকলের জয়মংগল হোক।

সূত্র-জয়মংগল অট্ঠগাথা, ভিক্ষু সত্যপাল।

Additional Info

  • Image: Image