২৫৬১ বুদ্ধাব্দ ১৪ চৈত্র ১৪২৩ বঙ্গাব্দ মঙ্গলবার, ২৮ মার্চ ২০১৭ইংরেজী

জাতক

মিত্রা - মিত্র লক্ষণ : সুলেখা বড়ুয়া

মিত্রা - মিত্র লক্ষণ : সুলেখা বড়ুয়া ভবান্তরে কে শত্রু কে মিত্র লক্ষণ দেখে বোধগম্য হওয়া বেশ দুস্কর, অনেক সময় শত্রুকেও মিত্রের আশ্রয় নিতে দেখা যায়,একটি ফুল দিয়ে যেমন মালা তৈরি হয় না, দুর্জ্জনের দু একটি ভাল কথার কুড়িতেও মিত্র ভাবা যায় না । আর এই মিত্রা মিত্র লক্ষণ বোঝার জন্যই আমার এহেন প্রয়াস ।পূণ্যশ্লোক সুমন সুকর্মের প্রভাবে ভবান্তরের কোন এক জন্মে বারাণসীর অধিপতি হয়েছিলেন, গৌতম বোধিসত্ত্ব ছিলেন তার প্রধান…

বণিক জাতক

বণিক জাতক ভারতের z বাংলা চ্যানেলে চাঁদের বুড়ি ও ম্যাজিকম্যান সিরিয়ালের ৩০৫ এপিসোডে বণিক জাতকের কাহিনী কার্টুন ভিডিও আকারে দৃশ্যায়িত হয়। ধর্ম প্রচারার্থে এবং আপনাদের সকলের দেখার সুযোগ করে দেবার জন্য এপিসোডটি এখানে আপলোড করা হল। নিজে দেখুন, এবং শেয়ার করে অন্যকে দেখার সুযোগ করে দিয়ে আপনিও ধর্মপ্রচারের অংশ হোন, ধর্ম প্রচার জনিত প্রভূত পূণ্যরাশি অর্জন করুন... বণিক জাতক : প্রাচীনকালে বারাণসী নগরে ব্রহ্মদত্ত নামে এক রাজা ছিলেন। তাঁর সময়ে…

জ্ঞানী পুরুষের দান

জ্ঞানী পুরুষের দান উজ্জ্বল বড়ুয়া বাসু কৈফিয়তঃ লেখাটা ভুলবশঃত বিশিষ্ট লেখিকা ইলা মুৎসুদ্দীর নামে প্রকাশিত হয়েছিল, লেখাটা উদীয়মান লেখক, সংগঠক উজ্জ্বল বড়ুয়া বাসু'র অনিচ্ছাকৃ্ত ভুলের জন্য দুঃখিত। বৌদ্ধধর্মে অনেক বড় একটা অংশ জুড়ে রয়েছে দানের মহিমা। তাই দান সম্পর্কে আমরা কমবেশী সকলেই জানি। আজ আমরা জ্ঞানী পুরুষের দান সম্পর্কেই জানব।সুমেধ তাপস দীপংকর বুদ্ধের কাছে অনাগতে সম্যক সম্বুদ্ধ হওয়ার আশীর্বাদ লাভ করে চিন্তা করেছিলেন- বুদ্ধগণের বাক্যের কখনোই অন্যথা হয়না, সূর্য উদিত…

জয়মঙ্গল অষ্ট গাথাঃ সত্যক সন্ন্যাসীকে পরাজয়ের কাহিনী

জয়মঙ্গল অষ্ট গাথায় তথাগত মহাকরুণিক সম্যক সম্বুদ্ধের জীবনের আটটি ঘটনার কথা উল্লেখ রয়েছে। আমার এই ক্ষুদ্রতম জ্ঞানে "জয়মঙ্গল অষ্ট গাথায়" বর্ণিত আটটি ঘটনার বিবরণ ধারাবাহিক ভাবে উপস্হাপন করার মধ্যেদিয়ে ধর্মদানপূর্বক পূণ্য অর্জনের প্রয়াস ব্যক্ত করছি। আজকের বর্ণনায়- সত্যক সন্ন্যাসীকে পরাজয়ের কাহিনী। সময় নিয়ে পড়ার অনুরোধ থাকল সবার প্রতি। যষ্ঠ গাথা- সচ্চং বিহায় মতি সচ্চক-বাদকেতুং, বাদাভিরো পিতমানং অতি-অন্ধভূতং। পঞ্ঞাপদীপজলিতো জিতবা মুনিন্দো, তন্তেজসা ভবতু তে জয়মঙ্গলানি। অনুবাদ : অসত্যভাষী মিথ্যাদৃষ্টিসম্পন্ন বাদ-বিবাদ পরায়ণ,…

নামসিদ্ধি জাতক

পুরাকালে বোধিসত্ত্ব তক্ষশিলা নগরে একজন বিখ্যাত আচার্য ছিলেন। পাঁচশতশিষ্য তাঁর বিদ্যাভ্যাস করত। এই সব ছাত্রদের মধ্যে একজনের নাম ছিল পাপক। অন্যান্য ছাত্ররা তাকে সব সময় ‘এস পাপক’, যাও পাপক বলত। তাতে পাপক চিন্তা করতে লাগল, আমার নাম অমঙ্গল সূচক। অতএব আমি অন্য একটি নাম গ্রহণ করব। পাপক তাই আচার্যের কাছে গিয়ে বলল, গুরুদেব, আমার বর্তমান নামটা অমঙ্গলসূচক। আমার অন্য একটি নাম রাখুন। আচার্য বললেন, যাও, তুমিজনপদে গিয়ে ঘুরে একটা মঙ্গল…