২৫৬১ বুদ্ধাব্দ ৮ আশ্বিন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ শনিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭ইংরেজী
বুধবার, 27 জানুয়ারী 2016 03:07

সত্য উপলব্ধি : সুলেখা বড়ুয়া

লিখেছেনঃ সুলেখা বড়ুয়া

সত্য উপলব্ধি : সুলেখা বড়ুয়া

বিচিত্র পৃথিবীতে সবচেয়ে বৈচিত্র্যময় হচ্ছে সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ জীব মানুষ, একমাত্র মানুষের মধ্যেই যে বৈচিত্রতা লক্ষ্য করা যায় তা কল্পনাতীত ।

কবির ভাষায় – জন্মিলে মরিতে হবে,অমর কে কোথা কবে ?
এ বাক্যটি যেমন চিরসত্য, তেমনি ধরাতে সবকিছুই পরিবর্তনশীল, এ কথাটিও যুক্তিযুক্ত ।একসময় যে নদী খরস্রোতা বহমান ছিল, আজ তা ধূ ধূ বালুচরে পরিণত হতে দেখা যায় । কিংবা সেই সময়কার যে জমিদার বাড়িগুলো জমজমাট ছিল তা আজ ভূতুড়ে বাড়িতে পরিণত হয়েছে ।তেমনি মানুষের মধ্যেও সময়ের পরিপ্রেক্ষিতে অনেক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়, যা কোন কোন সময় প্রত্যাশিত এবং কোন কোন সময় অনাকাক্ষিত ।

মঙ্গলকর পরিবর্তন সবসময় মঙ্গল বয়ে আনে আর অমঙ্গলকর পরিবর্তন কোন সময় ভাল ফল আশা করা যায় না । আর সেই মন্দ পরিবর্তন যদি হয় পরিবারে-পরিবারে সমাজে-সমাজে, কর্মক্ষেত্রে, বন্ধুত্বে-বন্ধুত্বে অথবা যদি হয় সে জীবনের প্রিয় মানুষটি । যার কারণে মানুষ মানুষের কাছ থেকে অনেক দুঃখ কষ্ট পেয়ে থাকে । মানবের এহেন অবস্থান্তর হয় একমাত্র লোভে, প্রতিহিংসা এবং বুদ্ধের ভাষায় অজ্ঞতার কারণে, আর এই লোভ, প্রতিহিংসা ও অজ্ঞতার কারণে কেউ দুঃখ পায় এবং কেউ দেয় ।

পরিবর্তিত (মন্দ) মানবজাতি যতক্ষণ নিজে নিজে অনুধাবন করতে পারবেনা তার চলার পথের ভুলগুলো, তাহলে পৃথিবীর কারো সাধ্য নেই, তাদের সঠিক পথে ফিরয়ে আনার ।

তাই এই ধরাধাম বৈচিত্রতায় পরিপূর্ণ, এই সত্যটি মনে ধারণ করে সত্য উপলব্ধি যতক্ষণ পর্যন্ত মানবের মনে উদয় না হবে, ঠিক ততক্ষণ পর্যন্ত মনে দুঃখ কষ্ট পেয়েই যাবে ।

সুতারাং

সত্য উপলব্ধিটা যদি সত্যিকার ভাবে সবার মনে উদয় হয়, তাহলে দুঃখ এবং এহেন মনোকষ্ট কাউকে স্পর্শ করতে পারবেনা ।

কামনার বহ্নিশিখা নিভিয়াছে যার

অন্তরেতে অনাবিল শান্তি পারাপার

তরঙ্গিত নিরন্তর ব্রাহ্মণ সে জন

করেন সকল কালে, সুখেতে শয়ন ।

সকল প্রাণী পরম মুক্তি লাভ করুক ।

সুলেখা বড়ুয়া : সুলেখিকা হিসাবে সুলেখা ইতিমধ্যে পাঠককূলের দৃষ্টি আকর্ষন করতে সমর্থ হয়েছে। সদ্ধর্মপ্রাণ লেখনি, বিন্যাস ও উদার চিন্তাধারা তাঁর লেখার উপজীব্য। বর্তমানে যুক্তরাজ্য প্রবাসী।

Additional Info

  • Image: Image