২৫৬১ বুদ্ধাব্দ ১০ চৈত্র ১৪২৩ বঙ্গাব্দ শুক্রবার, ২৪ মার্চ ২০১৭ইংরেজী
সোমবার, 15 ফেব্রুয়ারী 2016 01:33

সেন্টার অব এক্সেলেন্স ইন বুড্ডিস্ট স্টাডিজ’র সেমিনার, সম্মাননা ও বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান সম্পন্ন

লিখেছেনঃ শ্যামল চৌধুরী

সেন্টার অব এক্সেলেন্স ইন বুড্ডিস্ট স্টাডিজ’র সেমিনার, সম্মাননা ও বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান সম্পন্ন

জগতে মহাপুরুষগণ যেসব ধর্ম প্রচার করেছেন সব ধর্মেই মানবতার কল্যাণ, সত্য-সুন্দরের কথা বলা হয়েছে। কোন ধর্মেই দ্বন্ধের কথা বলা হয়নি। রামকৃষ্ণ পরমহংসদেব, বিবেকানন্দ যেমন সর্বধর্মের সমন্বয়ের কথা বলেছেন তেমনি মহামানব গৌতম বুদ্ধ আড়াই হাজারেরও অধিককাল আগে মানবমুক্তির কথা বলেছেন। মানুষকে ধর্ম হিসেবে বিভাজন করলে সাম্প্রদায়িকতার উপাদান সৃষ্টি হয়। মানুষকে মানুষ হিসেবে দেখলে সমাজে সকলের সুখে-শান্তিতে বসবাস করা সম্ভব। গত ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৬ শনিবার নগরীর ফুলকিস্থ এ.কে.খান স্মৃতি মিলনায়তনে সেন্টার অব এক্সেলেন্স ইন বুড্ডিস্ট স্টাডিজ’র সেমিনার, উপাধি ও সম্মাননা এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের বৌদ্ধ ছাত্র-ছাত্রীদের স্মৃতি বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সাধারণ) আবদুল জলিল উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। বক্তব্যে তিনি আরো বলেন ধর্মের নামে অনেক যুদ্ধ হয়েছে। আমাদের সকলকে সংকীর্ণ বেড়াজাল থেকে বের হয়ে আসতে হবে এবং সকলকে দেশের কল্যাণে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে যেতে হবে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি সুদৃঢ় করণে ধর্মের গুণাবলীকে নিজেদের মধ্যে আরো সুন্দরভাবে পরিচর্যা করতে হবে। সেন্টার অব এক্সেলেন্স ইন বুড্ডিস্ট স্টাডিজ এর এই মনোজ্ঞ অনুষ্ঠান আমাকে অভিভূত করেছে। সেন্টারের কর্মকাণ্ড সত্যিই প্রশংসনীয়। সংগঠনেরর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, আন্তর্জাতিক খ্যতিসম্পন্ন বিশ্ব বৌদ্ধনেতা, বিশ্বকীর্তিশ্রীসদ্ধর্মগবেষী প্রফেসর ড. বিকিরণ প্রসাদ বড়ুয়া’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত ভাষণ দেন সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ কুমার বড়ুয়া আনন্দ। 

প্রকাশনা সম্পাদক শ্যামল চৌধুরী ও নির্বাহী সদস্য চম্পাকলি বড়ুয়া’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সেমিনার পর্বে “বৌদ্ধ দর্শনের অন্তর্জালে অনিত্য, দুঃখ, অনাত্ম” বিষয়ের উপর প্রবন্ধ উপস্থাপক ছিলেন রাউজানের মহামুনি মহাবিহারের উপাধ্যক্ষ ভিক্ষু তণহংকর। আলোচক ছিলেন শাকপুরা সার্বজনীন তপোবন বিহারের অধ্যক্ষ সদ্ধর্মবিশারদ বসুমিত্র মহাথের, নব পণ্ডিত বিহারের অধ্যক্ষ অধ্যাপক উপানন্দ মহাথের ও চট্টগ্রাম কলেজের পালি বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক অর্থদর্শী বড়ুয়া।
উক্ত অনুষ্ঠানে সমাজের পাঁচ বিশিষ্ট ব্যক্তিকে উপাধি ও সম্মাননা প্রদান করা হয়। উপাধি ও সম্মাননাপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা হলেন সদ্ধর্ম গবেষণায় প্রভূত অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় পালি বিভাগের প্রফেসর ড. দীপংকর শ্রীজ্ঞান বড়ুয়াকে ‘সদ্ধর্মগবেষক’ উপাধি; সদ্ধর্ম, শিক্ষা ও সমাজসেবায় লায়ন ডা. মৃদুল বড়ুয়া চৌধুরীকে ‘সদ্ধর্মশোভন’ উপাধি, সমাজসেবায় সুনীল কান্তি বড়ুয়াকে ‘সার্টিফিকেট অব অনার’ সম্মাননা; চিকিৎসাসেবায় বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ডা. অসিত কুমার বড়ুয়াকে ‘সার্টিফিকেট অব মেরিট’ সম্মাননা এবং আইন পেশায় নিয়োজিত থেকে সমাজ-সদ্ধর্মসেবায় বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ এডভোকেট সাতকড়ি বড়ুয়াকে ‘সার্টিফিকেট অব এক্সেলেন্স’ সম্মাননা প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ১১জন বৌদ্ধ ছাত্র-ছাত্রীদেরকে তিন হাজার টাকা করে দার্শনিক ডা. রামচন্দ্র, সমাজসেবী অনুত্তর কুমার, পুণ্যশীলা কিরণময়ী, সমাজদরদী প্রেমলাল, ধর্মপরায়ণা আশালতা, পুণ্যবতী প্রতিমা রাণী, শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ সুবোধ রঞ্জন ও সমাজনেতা শান্তিপদ স্মৃতিবৃত্তি প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে ত্রিপিটক পাঠ করেন ভিক্ষু জ্যোতিকল্যাণ। অনুষ্ঠানে প্রকাশনা সম্পাদক শ্যামল চৌধুরীর সম্পাদনায় সংগঠনের বার্ষিক মুখপত্র ‘বুড্ডিস্ট এক্সেলেন্স’ এর মোড়ক উন্মোচন করেন আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ। শিল্পী অরূপ চৌধুরীর পরিচালনায় উদ্বোধনী সংগীত পরিবেশন করেন ‘অবকাশধারা’র শিল্পীবৃন্দ। সংগঠনের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিনকে দেয়া ক্রেস্ট গ্রহণ করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সাধারণ)। জেলা প্রশাসকের বরাবরে সেন্টার অব এক্সেলেন্স ইন বুড্ডিস্ট স্টাডিজকে রিসার্চ সেন্টারের জন্য একটি পরিত্যক্ত ভবন বরাদ্দের জন্য আবেদন জানানো হয়। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসককে সভাপতি প্রফেসর বড়ুয়া তাঁর সম্প্রতি প্রকাশিত বই ‘বুড্ডিজম এণ্ড ইটস্ থটস’”, ‘বুড্ডিস্ট এণ্ড পারস্পেকটিবস’ বুড্ডিস্ট এক্সেলেন্স এর ‘অনাগারিক ধর্মপাল’ কপি ও প্রফেসর প্রতিকণা বড়ুয়া লিখিত ‘দার্শনিক ডা. রামচন্দ্র বড়ুয়া : জীবন ও কর্ম’ বইগুলো উপহার দেন।

অনুষ্ঠানে সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক প্রণবরাজ বড়ুয়া, অর্থ সম্পাদক সনৎ কুমার বড়ুয়া, প্রচার সম্পাদক সুমিত্র বিকাশ বড়ুয়া এবং প্রদীপ বড়ুয়া। এছাড়া অনুষ্ঠানে চট্টগ্রামের বিশিষ্ট সুধিজন প্রফেসর ড. বেনুপ্রসাদ বড়ুয়া, অধ্যক্ষ (অব.) দীপক তালুকদার, কলেজ পরিদর্শক অধ্যাপক সুমন কান্তি বড়ুয়া, রম্য লেখক সত্যব্রত বড়ুয়া, লীডারশীপ সম্পাদক বসুমিত্র বড়ুয়া, ব্যাংকার রাখাল চন্দ্র বড়ুয়া, এ্যাডভোকেট তুষার কান্তি বড়ুয়াসহ বহু গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।



Additional Info

  • Image: Image