২৫৬১ বুদ্ধাব্দ ১০ বৈশাখ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ রবিবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৭ইংরেজী
রবিবার, 25 মে 2014 17:44

আদিবাসীদের নাচের শিকড় খুঁজতে চান ফিফা চাকমা

লিখেছেনঃ নির্বাণা ডেস্ক

আদিবাসীদের নাচের শিকড় খুঁজতে চান ফিফা চাকমা

লাজুক যে শিশুটি মায়ের বকুনির ভয়ে লুকিয়ে নাচ শিখত, সেই শিশুটি এখন রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী শিক্ষার্থী, এখন পড়ছেন ‘কত্থক নৃত্য’ বিভাগের স্নাতকোত্তর শেষ পর্বে। নাম তাঁর ফিফা চাকমা। স্নাতক সম্মান শ্রেণীতে প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হয়ে ফিফা ইতিমধ্যেই প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন। সম্প্রতি বৈসাবি উৎসব উপলক্ষে দেশে ফিরলে রাঙামাটিতে কথা হয় ফিফা চাকমার সঙ্গে। ফিফা চাকমা ভবিষ্যতে আদিবাসীদের নাচের শিকড় খুঁজে বের করে তার ব্যাপক চর্চা ও সংরক্ষণ করতে চান।

তিনি বলেন, ‘ভারতের বিভিন্ন নৃত্য প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে আমার নামের সঙ্গে বাংলাদেশের নাম উচ্চারিত হওয়ায় গৌরব বোধ করি।

নাচের মধ্যে আমার প্রিয় হচ্ছে কত্থক নৃত্য। এ ছাড়া বিভিন্ন আঞ্চলিক লোকনৃত্য, রবীন্দ্রনৃত্যসহ বিভিন্ন নৃত্যেরও চর্চা করে থাকি।’
ফিফা প্রথম মঞ্চে নাচেন চার বছর বয়সে শিশুশ্রেণীতে পড়ার সময় বনরূপা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে। ফিফার জীবনে প্রথম পুরস্কার জোটে ছয় বছর বয়সে বাংলাদেশ শিশু একাডেমী নৃত্য প্রতিযোগিতায় ১৯৯৬ সালে। তার পর আর পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি ফিফা চাকমাকে। নানা পুরস্কারে ভরতে থাকে ঘর। বিভিন্ন সময়ে অনুষ্ঠান করেছেন বিটিভি, একুশে টিভি, এটিএন বাংলা ও এনটিভিতে।

নাচ শেখার ক্ষেত্রে ফিফার মা স্কুলশিক্ষক রাখী দেওয়ানের পাশাপাশি বাবা সুভাষ চাকমা ওরফে জিনপাল লারমার আগ্রহও ছিল অনেক। মেয়ের নাচের জন্য পায়ের ঘুঙুর, একতারাসহ প্রয়োজনীয় বিভিন্ন জিনিসপত্র নিজের হাতে তৈরি করে দিতেন। ইন্ডিয়ান কাউন্সিল ফর কালচারাল রিলেশন (আইসিসিআর) স্কলারশিপের ব্যাপারেও তিনিই উদ্যোগ নিয়েছিলেন। ২০০৯ সালে স্কলারশিপ পাওয়ার চার দিন আগে ১৫ জুলাই বাবা মারা যান। ওই অবস্থায় বাবার শেষকৃত্য অনুষ্ঠান শেষ করার পরপরই ফিফা চাকমা মাকে নিয়ে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে নৃত্যকলা বিভাগে ভর্তি হন।

ফিফা চাকমা নাচ শিখেছেন রাঙামাটির সঞ্চনা চাকমা ও হুমায়ুন কবিরের কাছে। রাঙামাটিতে স্কুল শেষ করে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে লেখাপড়া করেছেন ঢাকার হলিক্রস কলেজে। ঢাকার নৃত্যাঞ্চলে শামীম আরা নিপা ও শিবলী মহম্মদের কাছে নাচ শিখেছেন বছর দেড়েক। রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্মান শ্রেণীতে অভিজিৎ রায় ও স্নাতকোত্তর শ্রেণীতে অমিতা দত্তের কত্থক নৃত্য শিক্ষা লাভ করেন। তিনি প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছাড়াও নন্দিনী চক্রবর্তীর কাছে চার বছর ধরে কত্থক নৃত্য শিখছেন। ২০১৩ সালের ২২-২৯ মে পদাতিক ড্যান্স সেন্টার আয়োজিত কর্মশালায় পণ্ডিত বিরজু মহারাজ ও শাশ্বতী সেনের সান্নিধ্য লাভের সুযোগ হয়। এ ছাড়া ইউজিসি আয়োজিত ‘টেগরস কনসেপ্ট অব ড্যান্স ট্রু হিজ ক্রিয়েসন্স’ শীর্ষক জাতীয় সেমিনার এবং ‘ফোক ড্যান্সেস: ওয়েস্ট বেঙ্গল অ্যান্ড বাংলাদেশ’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সেমিনারসহ বিভিন্ন সেমিনার ও কর্মশালায় অংশ নেন।

সর্বশেষ ফিফা চলতি বছরের ১০-১১ জানুয়ারি ভারতের ন্যাশনাল এডুকেশন সামিট উপলক্ষে গুজরাটের বরোদা মহারাজা সাওয়াজিরাও বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত আন্তবিশ্ববিদ্যালয় নৃত্য প্রতিযোগিতায় লাভ করেছেন প্রথম পুরস্কার। ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল ফোরাম অব আর্টস অ্যান্ড কালচার আয়োজিত তৃতীয় অল ইন্ডিয়া মেরিট টেস্ট কনটেস্ট ২০১৩ কত্থক নৃত্য প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান এবং কলকাতায় অনুষ্ঠিত অল ইন্ডিয়া চিলড্রেন মিউজিক কনফারেন্স ২০১৪ প্রতিযোগিতার কত্থক, রবীন্দ্র ও ফোক নৃত্যে তরুণ শিল্পী পর্যায়ে প্রথম পুরস্কার অর্জন করে বার্ষিক বৃত্তি লাভ করেন।

সূত্রঃ পাহাড়ী সংবাদ

Additional Info

  • Image: Image