২৫৬১ বুদ্ধাব্দ ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ বুধবার, ২৪ মে ২০১৭ইংরেজী
রবিবার, 12 এপ্রিল 2015 21:21

পুণ্যস্নানে রাখাইনদের নতুন বছর আবাহন : বৈসাবি'র আনন্দে ভাসছে পাহাড়ি জনপথ

লিখেছেনঃ নির্বাণা ডেস্ক

পুণ্যস্নানে রাখাইনদের নতুন বছর আবাহন : বৈসাবি'র আনন্দে ভাসছে পাহাড়ি জনপথ

দুই পক্ষের মধ্যে ব্যবধান মাত্র কয়েক ফুট। মাঝে একটি বাঁশ দিয়ে কৃত্রিম প্রতিবন্ধকতা। ড্রামে রাখা জল নিয়ে এক পক্ষ আরেক পক্ষের দিকে ছুঁড়ে মারছে। জল ছুঁড়ছেন তরুণরা, হেসে জবাব দিচ্ছেন তরুণীরা। আবার তরুণীদের ছোঁড়া জলে ভিজে একাকার হচ্ছেন তরুণরাও। দুই দলই কাকভেজা। বছরের একদিন আনন্দে ভেজা এদিন। উৎসবে মেতে ওঠা এ স্নানের নাম জলকেলি। পুরনো দিনের পাপ, কালিমা মোচন করে পুণ্যস্নানে নতুন বছরকে প্রতি বছর এভাবেই আবাহন করেন রাখাইন তরুণ-তরুণীরা। প্রতিবারের মতো গতকাল শুক্রবার নগরীর কাতালগঞ্জ নবপণ্ডিত বৌদ্ধবিহারে বাংলাদেশ রাখাইন স্টুডেন্ট অ্যাসোসিয়েশন চট্টগ্রাম শাখা এ বুদ্ধস্নান ও জলকেলি উৎসবের আয়োজন করে। রাখাইন নববর্ষ ১৩৭৭ বরণ করতে এ আয়োজন।

চট্টগ্রামে বসবাসরত বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এ জলকেলি উৎসবে অংশগ্রহণ করেন। দুই দলের স্নান শেষে অপর দুটি দল এসে যোগ দেয় জলকেলিতে। এভাবে বিরামহীন চলে জলকেলি উৎসব। বাংলাদেশ রাখাইন স্টুডেন্ট অ্যাসোসিয়েশন চট্টগ্রাম শাখার সাধারণ সম্পাদক উত্তরামনেং বলেন, পুরনো বছরের সব জীর্ণতা মুছে নতুন বছরকে বরণ করতে আমরা এই উৎসবে শরিক হই। তারই অংশ হিসেবে বুদ্ধকে স্নান করানোর পাশাপাশি নিজেদের পাপ ও কালিমামুক্তি ঘটে এই জলকেলির মধ্য দিয়ে।

এর আগে বেলা তিনটা থেকে বুদ্ধস্নানে অংশ নেন পুণ্যার্থীরা। পরে নবপণ্ডিত বিহারের অধ্যক্ষ উপানন্দ মহাথের প্রার্থনা পরিচালনা করেন। সব ভক্ত প্রার্থনায় যোগ দেন। প্রার্থনা শেষে উৎসবের পটভূমি তুলে ধরে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন রাখাইন বুড্ডিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় নেতা মং হ্লা চিং, অ্যাসোসিয়েশনের চট্টগ্রামের সভাপতি প্রকৌশলী ক্যমং রাখাইন প্রমুখ।
উপানন্দ মহাথের বলেন, পুরনো বছরের সব গ্লানি মুছে আমরা নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত। জলকেলির মধ্য দিয়ে আমাদের নববর্ষ আবাহন। পানি ছিটানোর মাধ্যমে একে অপরকে পবিত্র করে।

আদিবাসী জুম্মু সংস্কৃতি বিকাশ ও ঐতিহ্য সংরক্ষণে ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে আসার আহ্বানের মধ্য দিয়ে গত শুক্রবার বিঝু, সাংগ্রাই, বৈসুক, বিষু, বিহু-২০১৫ উদ্যাপনের কর্মসূচি শুরু হয়েছে।
পার্বত্য চট্টগ্রামের আদিবাসীদের বর্ষবিদায় ও বরণের উৎসব বিঝু, সাংগ্রাই, বৈসুক, বিষু, বিহু ঘিরে শুরু হয়ে গেছে আনন্দ-আয়োজন।

গতকাল সকালে বিঝু, সাংগ্রাই, বৈসুক, বিষু, বিহু উৎসব-২০১৫ উদযাপন কমিটি পার্বত্য চট্টগ্রামের আয়োজনে রাঙামাটি পৌরসভা প্রাঙ্গণে তিন দিনের কেন্দ্রীয় কর্মসূচির উদ্বোধন করেন শিক্ষাবিদ অধ্যাপক মানিক লাল দেওয়ান। এ সময় তিনি বলেন, ১৭ বছরেও পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়িত না হওয়া হতাশাজনক। চুক্তি বাস্তবায়িত হলে উৎসব আরও প্রাণবন্ত হতো। সরকারের প্রতি পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়নের আহ্বান জানিয়ে মানিক লাল দেওয়ান বলেন, চুক্তি বাস্তবায়ন করা হলে পাহাড়ি-বাঙালি সবাই উপকৃত হবে। সবচেয়ে বেশি লাভবান হবে সরকার।

উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক প্রকৃতি রঞ্জন চাকমার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাঙামাটি থেকে নির্বাচিত সাংসদ ও পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সহসভাপতি ঊষাতন তালুকদার বলেন, বিঝু, সাংগ্রাই, বৈসুক, বিষু, বিহু পার্বত্য চট্টগ্রামের সর্বজনীন উৎসব। শত প্রতিকূলতার মধ্যেও আদিবাসীরা যুগ যুগ ধরে এ উৎসব পালন করে আসছে।’
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটির সভাপতি গৌতম দেওয়ান, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য মাধবীলতা চাকমা, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জগৎ জ্যোতি চাকমা। স্বাগত বক্তব্য দেন উৎসব উদ্যাপন কমিটির সমন্বয়ক বিজয় কেতন চাকমা। পরে পৌরসভা প্রাঙ্গণ থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। রাজবাড়ী এলাকার শিল্পকলা একাডেমীতে গিয়ে শোভাযাত্রা শেষ হয়।

বাঘাইছড়িতে বিঝু মেলা উদ্বোধন: বাঘাইছড়ি (রাঙামাটি) প্রতিনিধি জানান, রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলা সদরে আদিবাসীদের সামাজিক উৎসব বৈসাবি উপলক্ষে বিঝু মেলা উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার জীবঙ্গাছড়া বৌদ্ধবিহারে পাশে চার গ্রামের প্রধানেরা শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে মেলার উদ্বোধন করেন। মেলা আগামী শনিবার পর্যন্ত চলবে।
মেলা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন কাচালং ডিগ্রি কলেজের উপাধ্যক্ষ দেবপ্রসাদ দেওয়ান, কাচালং বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ভদ্রসেন চাকমা, বিঝু মেলা উদ্যাপন কমিটির সহসভাপতি কান্তি চাকমা প্রমুখ।
বিঝু মেলা উদ্যাপন কমিটির সহসভাপতি কান্তি চাকমা জানান, মেলায় আদিবাসীদের ঐতিহ্যবাহী নাচ, গান, বলিখেলাসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান থাকছে। ১২ এপ্রিল মঙ্গল শোভাযাত্রার মাধ্যমে নদীতে ফুল ভাসানো হয়।
সৌজন্যেঃ দৈনিক আজাদী ও দৈনিক প্রথম আলো

Additional Info

  • Image: Image